গুরুদাসপুর উপজিলা

মুক্ত বিশ্বকোষ উইকিপিডিয়াত্ত
গুরুদাসপুর উপজিলা
Loc bangladesh.svg
Red pog.svg
গুরুদাসপুর
বিভাগ
 - জিলা
রাজশাহী বিভাগ
 - নাটোর
ভৌগলিক স্থানাংক 24.36666667° N 89.25° E
লয়াগ ১৯৯.৪ km²
সময়র লয়াগ বামাস (আমাস+৬:০০)
জনসংখ্যা (১৯৯১)
 - ঘনহান
১৭৩,২৭৬
 - ৮৬৯/km²
মানচিত্র: সরকারি মানচিত্রগ

গুরুদাসপুর, বাংলাদেশর রাজশাহী বিভাগর অধীনে নাটোর জিলার উপজিলা/থানা আগ।

ভৌগলিক উপাত্ত[পতিক]

উপজিলা এগর মাপাহানর অক্ষতুপ বারো দ্রাঘিমাতুপ ইলতাই 24.36666667° N 89.25° E। লয়াগ: ১৯৯.৪ বর্গমাইল বারো উপজিলা এগত: ৩২,৮৫১গ ঘরর ইউনিট আসে।

জনসংখ্যার উপাত্ত[পতিক]

বাংলাদেশর ১৯৯১ মারির মানুলেহা (লোক গননা) ইলয়া গুরুদাসপুরর জনসংখ্যা ইলাতাই ১৭৩,২৭৬ গ।[১]অতার মা মুনি ৫১%, বারো জেলা/বেয়াপা ৪৯%। উপজিলা এগত ১৮ বসরর গজে ৮৭,২৯০গ মানু আসি। হারি বর্গ কিলোমিটারে ৮৬৯গ মানু থাইতারা। গুরুদাসপুর-র সাক্ষরতার হারহান ২৩.৪%। বাংলাদেশর সাক্ষরতার হারহান ৩২.৪%, অহানাত্ত গুরুদাসপুর উপজিলা এগর সাক্ষরতার হারহান বপ/য়্যাম।

ইতিহাসহান[পতিক]

গুরুদাসপুর থানার সংক্ষিপ্ত কথায় আপনাকে স্বাগতম প্রারম্ভিকতা:

নাটোর জেলার মধ্যে সবচেয়ে ছোট থানা গুরুদাসপুর। আয়তন ৭৮ বর্গ মাইল মাত্র। আনুমাণিক ১৭৬৭ সালের দিকে ‘গুরুদাস’ নামক জনৈক পাটনি গুরুদাসপুর চর হতে ঝাউপাড়া পযর্ন্ত খেয়া দিত। এই চরে সর্ব প্রথম পাটনির ভাওড় স্থাপিত হয়। তার নামানুযায়ী স্থানটির নামকরণ করা হয় গুরুদাসপুর।

থানা বৃত্তান্ত :

গুরুদাসপুর থানাটি বড়াইগ্রাম থানার একাংশ নিয়ে গঠিত হয়। বড়াইগ্রাম থানা ১৮৬৯ খ্রিস্টাব্দে প্রতিষ্ঠিত। গুরুদাসপুর ১৯১৭ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। এই থানা প্রতিষ্ঠার আগে শরৎ কুন্ডু মহাশয় নামে এক ব্যক্তির মালাকানাধীন ছিল। কিন্তু ১৯১৭ সালের ২২ জুন গভর্নমেন্ট ৪৫৮৭ নম্বর নোটিশ দ্বারা থানা প্রতিষ্ঠার জন্য ৭ বিঘা তিন কাঠা পাঁচ ছটাক জমি দখল করে ৪০০ টাকা মূল্যে নামমাত্র ক্রয় করে। থানা প্রতিষ্ঠার আদি লগ্নে আপাতত শরৎ কুন্ডু মহাশয়ের সিংহ মার্কা দালানেই থানার কার্যক্রম চলে। তবে এর আগে এখানে পুলিশ ফাঁড়ি ছিল। ১৯২৩ সালে থানার জন্য নির্ধারিত ভবন নির্মাণ করা হয়।

তখন থেকেই গুরুদাসপুর এবং চাঁচকৈড় উন্নত ব্যবসা কেন্দ্র। ১৯৬০ থেকে ১৯৭০ দশকে “বিলচলন শাহমখদুম কলেজ” নামে একটি কলেজ প্রতিষ্ঠার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছিল। ১৯৫২ সালে যখন ভাষা আন্দোলন তুঙ্গে তখন ভাষা শহীদদের রক্তমাখা জামা নিয়ে চলেছিল বিভিন্ন স্থানে মিছিল। এই মিছিল করার অপরাধে অনেকের মতো শামসুজ্জোহা (ড. সৈয়দ মুহম্মদ শামসুজ্জোহা) নামক এক ছাত্রের নামে কেস হয়। তিনি গুরুদাসপুরে তার মামার বাড়ী (রবিউল করিম খান-প্রাক্তন প্রধান শিক্ষক, চাচকৈড় নাজিম উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়) আত্মগোপন করেন। তার নামানুসারে “বিলচলন শাহমখদুম কলেজ” এর নামে না করে ড. সৈয়দ মুহম্মদ শামসুজ্জোহা এর নামে ১৯৬৯ সালে “বিলচলন শহীদ শামসুজ্জোহা কলেজ” নামে নামকরণ করা হয়। তবে যতদূর জানা যায় শাহমখদুম কলেজ নামটির পরির্বতন করানোর জন্য যে দুটি ব্যক্তির বিশেষ অবদান ছিল তারা হলেন আলহাজ্জ জনাব মোঃ আব্দুল কুদ্দুস (বর্তমানে বাংলাদেশ সরকারের সংসদ সদস্য এবং সাবেক প্রতিমন্ত্রি) এবং এস এম মঈনুল হক। কলেজটির প্রতিষ্ঠাতা হিসাবে যে দুজনের নাম জানা গেছে তাঁরা হলেন এম এ হামিদ, টি, কে, এম এসসি এবং আব্দুল হাকিম সরকার। বর্তমানে কলেজে অনার্স (৪টি বিষয়ে) চালু করা হয়েছে। ছাত্র সংখ্যা প্রায় তিন হাজার। ১৯৫২ সালের ২৫ জানুয়ারি সাবরেজিস্ট্রি অফিস এবং ১৯৬৬ সালে ১ অক্টোবর “ইউনাইটেড ব্যাঙ্ক অব পাকিস্তান” প্রতিষ্ঠিত হইয়াছিল। বর্তমানে অনেক ব্যাঙ্ক, প্রতিষ্ঠান রয়েছে। ( মোঃ আবুল বাশার @ ০১৯১২৮০০২৭৯)

Read more: http://dharabarisha.webnode.com//

প্রশাসনিক লয়াগি[পতিক]

গুরুদাসপুর-ত ৯ গ ইউনিয়ন, ১১৮ হান মৌজা, বারো ১০২ হান গাঙ আসে।

ইউনিয়নগি[পতিক]

১। ধারাবারিষা

ধারাবারিষা ইউনিয়নের নামকরণ:

ধারাবারিষা ইউনিয়নের নামকরণ নিয়ে বহু মতভেদ রয়েছে। তার মধ্যে সবচেয়ে কাছের মতটি তার নামের মধ্যে লুকায়িত। ধারাবারিষা নামকে ভাঙলে মোট তিনটি অংশ পাওয়া যায়। ধারা+বারি+ষা (শাঁ)। এক সময় হঠাৎ করে প্রবল বর্ষনে বা বৃষ্টিতে আজকের নয়াবাজার টু গুরুদাসপুরগামী রাস্তার শিধুলী ও উদবাড়ীয়া গ্রামের মাঝখান ‍দিয়ে যে জলাশয় রয়েছে সেখান দিয়ে ও তুলশি নদী দিয়ে এবং ধারাবারিষা ও খাকড়াদহ গ্রামের আশ পাশ দিয়ে প্রবল বেগে বারি বা পানি প্রবাহিত হতে শুরু করে এবং শাঁ শাঁ করে শব্দ হতে থাকে। সেখান থেকে ধারাবারিষা নামের সূচনা। তাছাড়া ধরাবরিষা, ধরাবাশ্যি, ধুরাবাশ্যি প্রভৃতি আঞ্চলিক নাম রয়েছে। বর্তমানে অনেক ম্যাপে আজও ‘ধরাবারিষা’ নাম লক্ষ্য করা যায়। (বাঁকী মতভেদগুলো পরে যোগ করা হবে। কেউ কোন মত জানলে একটু সহযোগিতার হাত বাড়াবেন- মোঃ আবুল বাশার)।

গাঙহানি[পতিক]

ফায়-ফসল[পতিক]

নাঙকরা মানু[পতিক]

আরাকউ চেইক[পতিক]

পাসিতা[পতিক]

  1. বাংলাদেশর ১৯৯১ মারির মানুলেহা (লোক গননা). পাসিলাঙতা নভেম্বর ১০, মারি ২০০৬.



বাংলাদেশর বিভাগ বারো জিলাগি বাংলাদেশর পতাকাহান
বরিশাল বিভাগ: বরগুনা | বরিশাল | ভোলা | ঝালকাঠি | পটুয়াখালি | পিরোজপুর
চট্টগ্রাম বিভাগ: বান্দরবান | ব্রাহ্মণবাড়িয়া | চাঁদপুর | চট্টগ্রাম | কুমিল্লা | কক্সবাজার | ফেনী | খাগড়াছড়ি | লক্ষ্মীপুর | নোয়াখালি | রাঙামাটি
ঢাকা বিভাগ: ঢাকা | ফরিদপুর | গাজীপুর | গোপালগঞ্জ | জামালপুর | কিশোরগঞ্জ | মাদারীপুর | মানিকগঞ্জ | মুন্সিগঞ্জ | ময়মনসিংহ | নারায়নগঞ্জ | নরসিংদী | নেত্রকোনা | রাজবাড়ী | শরিয়তপুর | শেরপুর | টাঙ্গাইল
খুলনা বিভাগ: বাগেরহাট | চুয়াডাঙ্গা | যশোর | ঝিনাইদহ | খুলনা | কুষ্টিয়া | মাগুরা | মেহেরপুর | নড়াইল | সাতক্ষীরা
রাজশাহী বিভাগ: বগুড়া | জয়পুরহাট | নওগাঁ | নাটোর | নবাবগঞ্জ | পাবনা | রাজশাহী | সিরাজগঞ্জ
সিলেট বিভাগ: হবিগঞ্জ | মৌলভীবাজার | সুনামগঞ্জ | সিলেট
রংপুর বিভাগ: দিনাজপুর | গাইবান্ধা | কুড়িগ্রাম | লালমনিরহাট | নিলফামারী | পঞ্চগড় | রংপুর | ঠাকুরগাঁও


নিবন্ধ এহান বাংলাদেশর শহরর গজে লয়নাসে নিবন্ধহান। এহানর তথ্য অতা ১৯৯১ সালরতা, আপনা আসিরাং নুৱা তথ্য থাথাইবহান থকিলে এপেইত পতাদিক। মনেইলে লয়করানিত পাংকরিক।