দত্তপাড়া ইউনিয়ন, লক্ষ্মীপুর সদর

মুক্ত বিশ্বকোষ উইকিপিডিয়াত্ত উইকিপিডিয়া
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন
দত্তপাড়া ইউনিয়ন, লক্ষ্মীপুর সদর উপজিলা
মাপাহান

লক্ষ্মীপুর সদর উপজিলার মা দত্তপাড়া ইউনিয়নগ
উপজিলা লক্ষ্মীপুর সদর উপজিলা
জিলা লক্ষ্মীপুর জিলা
বিভাগ চট্টগ্রাম বিভাগ
প্রতিনিধি
চেয়ারম্যানগ মোঃ আবুল খাইর
পরিসংখ্যান
গাঙ ১৬ হান
মৌজা ১৬ হান
লয়াগ
 - পুল্লাপ
 

৬৬৯৪ একর (১৯ বর্গ কিমি)
ঘর ৪৭৯৪ গ
জনসংখ্যা
 - পুল্লাপ
 -বেয়াপা
 -মুনি

২৭,৮১০ গ (মারি ১৯৯১)
১৪,১১২ গ
১২,৬৯৮ গ
শিক্ষারহার ৪৮.২ %
সরকারী পৌ দত্তপাড়া ইউনিয়নর সরকারী তথ্য

দত্তপাড়া ইউনিয়ন এগ লক্ষ্মীপুর সদর উপজিলার লক্ষ্মীপুর জিলার বারো চট্টগ্রাম বিভাগর ইউনিয়ন আগ।

ভৌগলিক উপাত্ত[পতিক]

আয়তনহান: ৬৬৯৪ একর (১৯বর্গ কিলোমিটার)। ইউনিয়ন এগত ৪৭৯৪ গ ঘরর ইউনিট আসে।

চৌদ্দাহান[পতিক]

মুঙেদে: --- ইউনিয়ন।

পিছেদে: --- ইউনিয়ন।

খায়েদে: --- ইউনিয়ন।

ঔয়াঙেদে: --- ইউনিয়ন।

জনসংখ্যার উপাত্ত[পতিক]

বাংলাদেশর ১৯৯১ মারির মানুলেহা (লোক গননা) ইলয়া দত্তপাড়া ইউনিয়নর জনসংখ্যা ইলাতাই ২৭,৮১০ গ।[১] অতার মা মুনি ৪৯%, বারো জেলা/বেয়াপা ৫১%। ইউনিয়ন এগত ১৮ বসরর গজে ১২,৬৯৮গ মানু আসি। লহঙ করিসিতা ৪৭২৮গ বেয়াপা (১৫-৪৪ বসর) আসি। দত্তপাড়া ইউনিয়নর সাক্ষরতার হারহান ৪৮.২%।

ইতিহাসহান[পতিক]

দত্তপাড়া ইউনিয়নের ইতিহাস

লক্ষ্মীপুর সদর উপজিলার এটি বহুল আলোচিত ও প্রাচীনতম ইউনিয়ন । জানা যায়, ভুলুয়া রাজা রুদ্র মানিক্যের স্ত্রী রাণী শশীমুখী নর নারায়ণ নামক জনৈক ব্রাক্ষ্ণণ কর্মচারীর সাহায্যে জমিদারী পরিচালনা করতেন । তৎকালীন সময় ঐ জমিদারীত্বের অংশ দেখবাল করার জন্য শ্রী শ্রী রাজা কৈলাশ কান্তী দত্ত- কে প্রেরণ করেণ । জৈনক লক্ষ্মী রত্না ব্রামন নামক এক সুকেশা রমনীর সুন্দৌর্যে পড়ে তাকে বিবাহ করে । ঐসময়ে বাদশা কৈলাশ কান্তী দত্ত-এর জমিদারী কাজে অবহেলা করার কারণে তাকে কারাঘারে নিক্ষেপ করে। তাই জৈনক লক্ষ্মী রত্না ব্রামন তার জীবন বাঁচানোর জন্য এই অঞ্চলে এসে আশ্রয় নেয় । কিছু কাল পর জমিদার শ্রী শ্রী রাজা কৈলাশ কান্তী দত্তের কারাঘারে মৃত্যুর পরে লক্ষ্মী রত্না ব্রামন এর খোঁজ এই অঞ্চলে পায়। জমিদার কৈলাশ কান্তী দত্তের অকাল মৃত্যুর জন্য লক্ষ্মী রত্না ব্রামন-কে রাজ দরবারে ডেকে এই অঞ্চলে কিছু অংশ তাকে দত্তবাগ নামে দান করে । তার নামানুসারে কালের পরিবর্তনের সাথে সাথে বর্তমান দত্তপাড়া জন্ম হয় ।

এই অঞ্চলের মানুষ শান্তি কামী । অত্র ইউনিয়নে শিক্ষার হার প্রায় ৫৫%, এই ইউনিয়টি ৯টি ওয়ার্ডে ( ১) বড়ালিয়া। ২) গংঙ্গাশিবপুর। ৩) বড়পাড়া। ৪) বটতলী। ৫) দর্জিপাড়া। ৬)দত্তপাড়া। ৭) করইতলা। ৮) লালপুর। ৯)নরসিংহপুর। ১০) পুনিয়া নগর। ১১) রমারখিল। ১২) সৈয়দপুর। ১৩) শ্রীরামপুর।১৪) তোতারখীল। ১৫) ধন্যপুর- মোট ১৫ টি ছোট বড় গ্রাম, ১টি পুলিশ তদন্ত কেন্দ্র এবং ১টি ডাকঘর নিয়ে এই ইউনিয়ন গঠিত।এই ইউনিয়নে ৩ টি মাদ্রাসা আছে (০১)দত্তপাড়া ইসলামিয়া আলিম মাদ্রাসা (০২)রমারখিল জাব্বারিয়া ইসলামিয়া আলিম মাদ্রাসা (০৩)বড়ালিয়া দাখিল মাদ্রাসা।

গ্রামগুলোর অধিকাংশ মানুষ পেশায় কৃষি কাজ করে এবং প্রবাসি। এছাড়া ও কিছু মানুষ শিক্ষকতা, ব্যবসা, সরকারী চাকুরি, দিনমুজুর ইত্যাদি পেশায় নিয়োজিত আছেন। কৃষকরা বেশিরভাগ ঋতু কালীন ফসল ফলিয়ে জিবিকা নির্বাহ করেন। যেমন, ধান, পাট, ইত্যাদি। আর সবজি চাষের মধ্যে প্রধান হলো শসা। অত্র ইউনিয়নে উৎপাদিত শসা দেশের বিভিন্ন জেলায় রপ্তানি করেন। আগে অত্র ইউনিয়নে শিক্ষিতের হার কম থাকলে ও বর্তমানে শিক্ষার হার দিন দিন বাড়ছে।

ভাষা গত দিক থেকে অত্র অঞ্চলের মানুষ নোয়াখালীর আঞ্চলিক ভাষাই ব্যবহার করে থাকেন। তবে আঞ্চলিক ভাষার ক্ষেত্রে শব্দের শেষ অক্ষরটি একটু টান দিয়ে উচ্চারণ করে ।

http://dotoparaup.lakshmipur.gov.bd

গাঙ বারো মৌজা[পতিক]

ইউনিয়ন এগত গাঙ: ১৬ হান বারো মৌজা: ১৬ হান আসে

পাসিতা[পতিক]

  1. বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো (BBS). পাসিলাঙতা জুলাই ২, মারি ২০০৭.


Flag of Bangladesh.svg   বাংলাদেশর স্থানীয় সরকারর প্রশাসনর ইউনিয়নয়র বারে লইনাসে নিবন্ধ আহান, লইকরানিত পাঙকরিক।