চিলমারী ইউনিয়ন, দৌলতপুর (কুষ্টিয়া)

মুক্ত বিশ্বকোষ উইকিপিডিয়াত্ত উইকিপিডিয়া
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
চিলমারী ইউনিয়ন, দৌলতপুর (কুষ্টিয়া) উপজিলা
মাপাহান

দৌলতপুর (কুষ্টিয়া) উপজিলার মা চিলমারী ইউনিয়নগ
উপজিলা দৌলতপুর (কুষ্টিয়া) উপজিলা
জিলা কুষ্টিয়া জিলা
বিভাগ খুলনা বিভাগ
প্রতিনিধি
চেয়ারম্যানগ D.M. Saiful Islam Shely
পরিসংখ্যান
গাঙ ১১ হান
মৌজা ১০ হান
লয়াগ
 - পুল্লাপ
 

১২,৩০৭ একর (৫৪,.৯৫ বর্গ কিমি)
ঘর ২৯৫৪ গ
জনসংখ্যা
 - পুল্লাপ
 -বেয়াপা
 -মুনি

১৬,৪৫৯ গ (মারি ১৯৯১)
৮০৪৬ গ
৮১৯৬ গ
শিক্ষারহার ১৪ %
সরকারী পৌ চিলমারী ইউনিয়নর সরকারী তথ্য

চিলমারী ইউনিয়ন (ইংরেজি:Chilmari), এগ দৌলতপুর (কুষ্টিয়া) উপজিলার কুষ্টিয়া জিলার বারো খুলনা বিভাগর ইউনিয়ন আগ।

ভৌগলিক উপাত্ত[পতিক]

আয়তনহান: ১২,৩০৭ একর (৫৪,.৯৫বর্গ কিলোমিটার)। ইউনিয়ন এগত ২৯৫৪ গ ঘরর ইউনিট আসে।

চৌদ্দাহান[পতিক]

মুঙেদে: --- ইউনিয়ন।

পিছেদে: --- ইউনিয়ন।

খায়েদে: --- ইউনিয়ন।

ঔয়াঙেদে: --- ইউনিয়ন।

জনসংখ্যার উপাত্ত[পতিক]

বাংলাদেশর ১৯৯১ মারির মানুলেহা (লোক গননা) ইলয়া চিলমারী ইউনিয়নর জনসংখ্যা ইলাতাই ১৬,৪৫৯ গ।[১] অতার মা মুনি ৫১%, বারো জেলা/বেয়াপা ৪৯%। ইউনিয়ন এগত ১৮ বসরর গজে ৮১৯৬গ মানু আসি। লহঙ করিসিতা ৩০১৫গ বেয়াপা (১৫-৪৪ বসর) আসি। চিলমারী ইউনিয়নর সাক্ষরতার হারহান ১৪%। বাংলাদেশর সাক্ষরতার হারহান ৩২.৪%।

১৮৫০ সালে চিলমারী নামে একটি গ্রা‌মের অস্তিত্ব প্রতিষ্ঠা পায়। চিলমারী গ্রা‌মের নামকরণ নিয়ে বিশাল উপাখ্যান রয়েছে, রয়েছে নানা জনশ্রুতি আর নামকরণের কিংবদন্তি ছড়িয়ে থাকা নানান জনশ্রুতির মধ্যে কোনটি সঠিক তা স্পষ্ট করে বলা সম্ভব নয়। জনশ্রুতি- ১ থেকে জানা গেছে, আজ থেকে কয়েক শত বছর পূর্বে চিলমারীর অধিকাংশ ভূ-খন্ডই ছিল বালূ দিয়ে ঢাকা। তখন নাকি এই চিলমারী নামক বালু রাজ্যে প্রচুর চিনা বাদাম আবাদ হতো। এই কারণে নাকি এই জায়গাটির নামকরণ হয়েছিল চিনামারী। এখানে ‘মারী’ শব্দটি জায়গা বা স্থান। সেই চিনামারীই নাকি কালের বিবর্তনে আজকের চিলমারী শব্দে পরিণত হয়েছে। জনশ্রুতি-২ থেকে জানা যায়, এককালে অত্র এলাকায় চিলা পাখির নাকি প্রচুর উপদ্রব দেখা দিয়েছিল। ধানী বা আবাদী জমিতে দল বেঁধে চিল পাখি উড়ে আসতো। নষ্ট করতো হাজার হাজার একর জমির ফসল। চিলের উপদ্রপে হাটে বাজারে স্বস্থিতে কেউ থাকতে পারতো না। সর্বত্রই চিল আতঙ্ক, জনজীবনকে বিপর্যস্থ করে তুলেছিল। এসকল চিল পাখি পদ্মার উপকূলে দল বেঁধে ঘুরে বেড়াতো, বাস করতো বাঁশ ঝাড়ে, কাশফুলের ঝোপ অথবা বটবৃক্ষের ডগায় চড়ে। জনশ্রুতি রয়েছে যদি কোন মানুষ ভুলেও একটি চিল পাখিকে হত্যা করেছে তো আর রক্ষা নেই। কোথা থেকে সঙ্গে সঙ্গে আসতো হাজার হাজার চিল পাখি। ছয় সাত দিন ধরে অত্যাচার চলতো ঐ মানুষটির বাড়ীর উপর। উপদ্রবের প্রতিকার চেয়ে তারা আবেদন করলো বৃটিশ সরকারের কাছে। বৃটিশ সরকারের পক্ষ থেকে সিদ্ধান্ত এলো চিল পাখিগুলোকে হত্যা করার। এই সিদ্ধান্তের বার্তাটি পৌঁছে গেল কুষ্টিয়ার বিভিন্ন এলাকায়। তাই তারা সংবাদ পাওয়া মাত্র তীর ধনু নিয়ে দল বেঁধে বৃটিশ সরকার প্রেরীত বন্ধুকধারী সৈনিকের পিছু পিছু ছুটে এলো চিলমারীর মানুষগুলোকে চিল পাখির হাত থেকে নিস্তার দেওয়ার জন্য। দল বেঁধে মানুষের বাতান নামলো চিলমারী হাটে মাঠে-ঘাটে, আনাচে-কানাচে। দল বেঁধে তীর ধনু হাতে নিয়ে লোকজন যখন চিলমারীর পানে ছুটে আসছিল পথিমধ্যে অনেক না জানা লোক যখন দল বেঁধে এতগুলো লোককে আসতে দেখে জিজ্ঞেস করলো আপনারা এভাবে কোথায় চলছেন? তখন ঐ মানুষের মিছিল থেকে একটি উত্তর ভেসে আসতো চলো চলো চিল-মারী শ্লোগানের মতো। এই শ্লোগান থেকেই নাকি চিলমারী শব্দের উৎপত্তি হয়েছে এবং এলাকার নামককরণ হয়েছে আজকের চিলমারী। জনশ্রুতি-৩ থেকে জানা যায়, এক সময় ভার‌তের পদ্মা নদীর উপকূল ঘেঁষে গড়ে উঠেছিল এক নদী বন্দর। বড় নৌকা আর জল জাহাজ ভীড়তো এই নদী বন্দরটিতে। মালামাল খালাস করা হতো আবার জাহাজে নতুন করে মাল ভরে পাড়ি জমাতো অন্য বন্দরের পানে। ঐ সময় বৃটিশ প্রশাসন কর পরিশোধ করবার জন্য এই বন্দরটিতে একটি কাষ্টম অফিস স্থাপন করেছিল।জানা যায় পরে সেই কাষ্টম অফিস পদ্মার গর্ভে বিলীন হয়ে যায়। কাষ্টম অফিসার যিনি ছিলেন তিনি কর পরিশোধ হওয়া মাত্রই মালের উপর সিল মেরে দিতেন। সেই সিল মারা দেখে অনেক অশিক্ষিত লোক তখন এই কাষ্টম অফিসটি সিল-মারী অফিস হিসেবে চিনতো। এই সিল-মারী কালের বিবর্তনে আজকের চিলমারী নামকরণ হয়ে গেছে।


সম্প্রদনা উম্মত

গাঙ বারো মৌজা[পতিক]

ইউনিয়ন এগত গাঙ: ১১ হান বারো মৌজা: ১০ হান আসে

নাংকরা মানু[পতিক]

ফায় ফসল[পতিক]

সাকেই আসে ইকরা[পতিক]

তথ্যসূত্র[পতিক]

  1. বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো (BBS). পাসিলাঙতা জুলাই ২, মারি ২০০৭.


Flag of Bangladesh.svg   বাংলাদেশর স্থানীয় সরকারর প্রশাসনর ইউনিয়নয়র বারে লইনাসে নিবন্ধ আহান, লইকরানিত পাঙকরিক।