ধরাবারিসা ইউনিয়ন, গুরুদাসপুর

মুক্ত বিশ্বকোষ উইকিপিডিয়াত্ত উইকিপিডিয়া
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

ধারাবারিষার নামকরনঃ ধারাবারিষা ইউনিয়নের নামকরণ নিয়ে বহু মতভেদ রয়েছে। তার মধ্যে সবচেয়ে কাছের মতটি তার নামের মধ্যে লুকায়িত। ধারাবারিষা নামকে ভাঙলে মোট তিনটি অংশ পাওয়া যায়। ধারা+বারি+ষা (শাঁ)। এক সময় হঠাৎ করে প্রবল বর্ষনে বা বৃষ্টিতে আজকের নয়াবাজার টু গুরুদাসপুরগামী রাস্তার শিধুলী ও উদবাড়ীয়া গ্রামের মাঝখান ‍দিয়ে যে জলাশয় রয়েছে সেখান দিয়ে ও তুলশি নদী দিয়ে এবং ধারাবারিষা ও খাকড়াদহ গ্রামের আশ পাশ দিয়ে প্রবল বেগে বারি বা পানি প্রবাহিত হতে শুরু করে এবং শাঁ শাঁ করে শব্দ হতে থাকে। সেখান থেকে ধারাবারিষা নামের সূচনা। তাছাড়া ধরাবারিসা, ধরাবরিষা, ধরাবাশ্যি, ধুরাবাশ্যি প্রভৃতি আঞ্চলিক নাম রয়েছে। বর্তমানে অনেক ম্যাপে আজও ‘ধরাবারিষা’ নাম লক্ষ্য করা যায়। (আবুল বাশার)




ধরাবারিসা ইউনিয়ন, গুরুদাসপুর উপজিলা
মাপাহান

গুরুদাসপুর উপজিলার মা ধরাবারিসা ইউনিয়নগ
উপজিলা গুরুদাসপুর উপজিলা
জিলা নাটোর জিলা
বিভাগ রাজশাহী বিভাগ
প্রতিনিধি
চেয়ারম্যানগ Md. Abdul Motin
পরিসংখ্যান
গাঙ ১৭ হান
মৌজা ১৫ হান
লয়াগ
 - পুল্লাপ
 

৭৮৯৪ একর (২৯ বর্গ কিমি)
ঘর ৪১৩৬ গ
জনসংখ্যা
 - পুল্লাপ
 -বেয়াপা
 -মুনি

২৩,৬৯৮ গ (মারি ১৯৯১)
১১,৬৪৩ গ
১১,৩৩৬ গ
শিক্ষারহার ২২.১ %
সরকারী পৌ ধরাবারিসা ইউনিয়নর সরকারী তথ্য

ধরাবারিসা ইউনিয়ন (ইংরেজি:Dharabarisha), এগ গুরুদাসপুর উপজিলার নাটোর জিলার বারো রাজশাহী বিভাগর ইউনিয়ন আগ।

ভৌগলিক উপাত্ত[পতিক]

আয়তনহান: ৭৮৯৪ একর (২৯বর্গ কিলোমিটার)। ইউনিয়ন এগত ৪১৩৬ গ ঘরর ইউনিট আসে।

চৌদ্দাহান[পতিক]

৫নং ধারাবারিষা ইউনিয়ন পরিষদ

পিছেদে: --- ইউনিয়ন।

খায়েদে: --- ইউনিয়ন।

ঔয়াঙেদে: --- ইউনিয়ন।

জনসংখ্যার উপাত্ত[পতিক]

বাংলাদেশর ১৯৯১ মারির মানুলেহা (লোক গননা) ইলয়া ধরাবারিসা ইউনিয়নর জনসংখ্যা ইলাতাই ২৩,৬৯৮ গ।[১] অতার মা মুনি ৫১%, বারো জেলা/বেয়াপা ৪৯%। ইউনিয়ন এগত ১৮ বসরর গজে ১১,৩৩৬গ মানু আসি। লহঙ করিসিতা ৪১১৭গ বেয়াপা (১৫-৪৪ বসর) আসি। ধরাবারিসা ইউনিয়নর সাক্ষরতার হারহান ২২.১%। বাংলাদেশর সাক্ষরতার হারহান ৩২.৪%।

ইতিহাসহান[পতিক]

ধারাবারিষার প্রাচীনতম মসজিদ ও দরগাশরীফ

বিশ্বরোড হবার পূর্বে রাজশাহী নাটোর হয়ে গুরুদাসপুর আসার পথে পশ্চিম পার্শ্বে আমবাগানের মধ্যে একটি প্রাচীন মসজিদ আছে। পলশুড়া পাটপাড়ায় অবস্থিত এ মসজিদ দেখে ধারণা করেন এটি প্রায় চারশত বছর পূর্বে নির্মিত। বাংলাদেশ স্বাধীন হবার প্রাক্কালে তৎকালীন গুরুদাসপুর থানার উন্নয়ন বিভাগীয় সার্কেল অফিসার জনাব সৈয়দ আরিফুল হুদা সাহেবের চেষ্টায় চারপাশ পরিষ্কার করে জনসাধারণের জন্য খুলে দেয়া হয়। অতীতে এখানে জাঁকজমক সহকারে মহররমের উৎসব হত। মসজিদের পূর্ব পার্শ্বে একটা পুকুর ছিল। সেটা প্রায় ১৯০০ সালের প্রথম দশকের দিকে সংস্কার করা হয়। মসজিদের দক্ষিন দিক হতে যে নদী প্রবাহিত তার নাম তুলসি নদী। এ নদীটি পদ্মা হতে উৎপন্ন হয়ে সোনাবাজুর উত্তর দিক ও পলশুড়া পাটপাড়ার দক্ষিন দিয়ে এবং শিধুলী ও আইড়মাড়ী বিলের মধ্যে দিয়ে চেঁচুয়া নদী ও কিণু সরকারের ধর হয়ে বড়াল নদীতে পড়েছে। চেঁচুয়া নদী হল ধারাবারিষা গ্রামের দক্ষিন পাশি দিয়ে কৈ-খোলার বিল, চাতরার বিল ও জরদার জোলা হয়ে আফরার বিলের মধ্যে দিয়ে খলিশাগাড়ী বিলে গেছে। সেখান থেকে কিণু সরকারের ধর হয়ে বওসা নদীতে মিশে পরে বড়াল নদীর সাথে সংযুক্ত হয়েছে। মসজিদ, পুকুর, দরগা শরীফ দেখে বলা যায় পলশুড়া এককালে উন্নত ছিল। পাটপাড়া ছাড়াও শিধুলী গ্রামে প্রাচীন মসজিদ আছে। শিধুলী মসজিদের পূর্ব পাশে একটা দোচালা ঘরে প্রচুর মূর্তি ছিল।

পাটপাড়ায় দরগা শরীফ নামক স্থানে দুটি কবর আছে। অতীতকালে লোকজন এখানে কবর জিয়ারত করে সিন্নি বিতরণ করত। পাকিস্তান ভারত পৃথককালে (১৯৪৭) লোকে এ দরগায় বাতি ও তেল সিদুঁর দিত। অত্যন্ত সম্মান দেখাতে গিয়ে মানুষজন পায়ের জুতা খুলে, মাথার ছাতা বনধ করে ভদ্রভাবে এ এলাকা পার হতেন।

পলশুড়া ও শিধূলী গ্রামে নাটোর রাজাদের কর্মচারী ছিল। নাটোরের রাজা বীরেন্দ্রনাথের শাসনামলে () রাজা বীরেন্দ্রনাথ রায় বাহাদুর পাটপাড়া দরগাশরীফের জন্য বার বিঘা পীরপাল জমি দান করেছিলেন। তিনি মুসলমানদের ধর্মগ্রন্থ আল কুরআন পাঠ করতেন। কুরআন শরীফ পড়ে এবং অন্যান্য ইসলামী গ্রন্থ পাঠ করার পর রাজা মুসলমানেদের ধর্মের প্রতি আকৃষ্ট হন। কোন এক দিন রাজা কোরআন শরীফ পাঠকালে হাঁসমারী গ্রামের হাজি মসলেম উদ্দিন মিয়া রাজার কুরআন পাঠে ভুল পান। জনাব মসলেম উদ্দিন মিয়া রাজার কুরআন পড়া সংশোধন করে দিলে রাজা খুশি হয়ে হাজি সাহেবকে বত্রিশ বিঘা জমি দান করেন। যে জমির কোন খাজনা কর দিতে হত না। রাজা কুরবাণী দেবার জন্য কয়েকটি উট কিনেন কিন্তু যখন শুনলেন মুসলমান না হলে কুরবাণী সহিয় হয় না তখন তিনি পরিবার বর্গের নিকট মুসলমান হবার সিদ্ধান্ত জানালেন। কিন্তু রাজার পরিবার ও আত্মীয় স্বজন রাজাকে মুসলমান না হতে অনুরোধ করেন। ফলে রাজা মুসলমান না হয়ে উটগুলো পলশুড়া, পাটপাড়া, ধারাবারিষা প্রভৃতি গ্রামের মুসলমান প্রজাদের মধ্যে দান করেন। রাজার নানা রকম খামখেয়ালী অাচরণের জন্য এ রাজাকে ‘পাগলা রাজা’ বলা হত। (মোঃ আবুল বাশার)

Read more: http://cholonbil.com/

গাঙ বারো মৌজা[পতিক]

ইউনিয়ন এগত গাঙ: ১৭ হান বারো মৌজা: ১৫ হান আসে

নাংকরা মানু[পতিক]

ফায় ফসল[পতিক]

সাকেই আসে ইকরা[পতিক]

তথ্যসূত্র[পতিক]

  1. বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো (BBS). পাসিলাঙতা জুলাই ২, মারি ২০০৭.


Flag of Bangladesh.svg   বাংলাদেশর স্থানীয় সরকারর প্রশাসনর ইউনিয়নয়র বারে লইনাসে নিবন্ধ আহান, লইকরানিত পাঙকরিক।